এক সন্ধ্যায়, বাসায় ঝগড়া লাগলো কারণ বাবার কাছে বাসা ভাড়া দেয়ার জন্য পর্যাপ্ত টাকা ছিল না; এইদিক দিয়ে কয়েক মাসের ভাড়া দেয়াও বাকি ছিলো। পর দিন সকালে, আমি এলাকায় বের হই, কাজের সন্ধানে; যেকোনো কাজ।

Meet The Makers - Tailor in Bangladesh 5

“আমার জীবনের প্রথম চাকরি ছিল আমাদের এলাকার একটা গলির মুদির দোকানে। ওই কাজটা আমি নিজ ইচ্ছাই নেই নাই। পরিস্থিতির কারনেই ওই কাজটা আমার করতে হয়েছিল। তখন পর্যন্ত, আমাদের পরিবারের যোগান আমার বাবা একাই দিচ্ছিলেন। যত বছর গেলো, থাকা-খাওয়ার খরচ ও বেড়ে গেলো, কিন্তু আয় তো তেমন বাড়ে নাই। একটা সময় এসে, বাবার রোজগার করা টাকায় আমাদের সংসারের খরচ একটুও পূরণ হচ্ছিলো না। এক সন্ধ্যায়, বাসায় ঝগড়া লাগলো কারণ বাবার কাছে বাসা ভাড়া দেয়ার জন্য পর্যাপ্ত টাকা ছিল না; এইদিক দিয়ে কয়েক মাসের ভাড়া দেয়াও বাকি ছিলো। পর দিন সকালে, আমি এলাকায় বের হই, কাজের সন্ধানে; যেকোনো কাজ।

কয়েকটা দোকান ঘোরার পর, আমি সেই মুদি দোকানে কাজের সন্ধান পাই – আমার প্রথম চাকরি। ওটা আমার জন্য কোনো আনন্দময় অভিজ্ঞতা ছিলোনা। দোকান মালিক কথায় কথায় আমাকে গালি দিতো আমাকে দমিয়ে রাখার জন্য। এক সময় এসে সে আমার সততা নিয়েও প্রশ্ন তুলতে লাগলো, কারন তার মনে হচ্ছিলো আমি চুরি করেছি। কিন্তু দিন শেষে আমার এইটুকুই শান্তনা ছিল যে আমি আমার পরিবারের অর্থ সংকট কিছুটা হলেও লাঘব করছিলাম।

সাল তখন ২০০০, আমি চিন্তা করলাম নতুন কিছু করার। আমি এই দোকানের দর্জির কাছে কাজ শেখা শুরু করলাম। তিনি অসম্ভব রকমের ধর্য্যশীল একজন মানুষ। অনেকটা সময় নিয়ে তিনি আমাকে কাজ শিখিয়েছেন। আমি আজ দর্জির যতটুকুই কাজ পারি না কেন, এটা পুরোটাই যেন তার দেয়া একটা দান আমার জন্য। আজ প্রায় ১৭ বছর ধরে আমি তার অধীনে কাজ করে যাচ্ছি।”

– একজন গর্বিত কারিগর।


My first job was in a local grocery shop down the alley in the neighbourhood we lived in. That was not a job I chose to do. It was what circumstances demanded. Till then, my father was supporting our family alone. Over the years, living costs went up, but income didn’t! At one point, Baba’s earnings were barely enough to cover our utilities. One evening, an argument broke out at home because Baba didn’t have money to pay for our house rent. The next morning, I walked around the neighbourhood, seeking a job; any job.

After looking around in a few shops, I secured a job in that grocery store – My first job. It wasn’t a pleasant experience. The owner would use slangs every now and then to keep me on my toes. He’s questioned my honesty more than once; he was under the impression that I was stealing. But at the end of the day, the satisfaction of easing the family’s financial crisis outweighed the insults, to be honest.

In the year 2000, I finally decided to take up something new. I started learning about tailoring from the Master here. He is unbelievably patient! He took his time to groom me. My skills are his gift to me. I’ve been working here under him for almost 7 years now.

– A Proud Maker

This story is featured in Made In Equality, an initiative supported by C&A Foundation.