[Part 2/2] আমার স্বপ্ন একদিন নিজের একটা টেইলরের দোকান খুলবো আর আমার ছেলেটা পড়াশোনা করে বড় কিছু হবে। আর একটা আসা আছেঃ আমার মতো যাতে কার সাথে এমন না হয়।"

19055651_1900305603584108_9071751194533856353_o

[Part 2/2]
 
“আমার ছেলেটা এখন স্কুলে যায়। বাবার কাছে যেতে বললে যেতে চায় না। ওর অসুখটা এখনো পুরপুরি সারেনি। আমার স্বামী এখনো তার ছেলের দায়িত্ব নিতে চান না। গত বছর যখন এখানে আগুন লাগাতে আমার সেলাই মেশিনটা পুড়ে যায়। বেশ ক্ষতি হয় তাতে। কিন্তু তাও টিকে আছি। আমার স্বপ্ন একদিন নিজের একটা টেইলরের দোকান খুলবো আর আমার ছেলেটা পড়াশোনা করে বড় কিছু হবে। আর একটা আসা আছেঃ আমার মতো যাতে কার সাথে এমন না হয়।”
– সাবেক গার্মেন্ট কারখানা কর্মচারী এবং একটি বর্তমান দরজী
 

“My son is doing better now; he goes to school. He never wants to go visit his father. My son has not recovered fully yet. And his father? He’s still in denial of any responsibility towards us. Last year, when a fire broke out, my machine got burned. I faced a huge loss but I am standing still. My dream is to open my own Tailor shop one day and my son will become a big man once he completes his education. I have one more wish: I hope that no one has to suffer in life the way I had to.”
– A former garment factory employee and a current tailor

This story is featured in Made In Equality, an initiative supported by C&A Foundation.