[Part 2/2] "আমার কাজ ছেড়ে চলে যাওয়ার পরিকল্পনা ছিল। চাকরিটা ছাড়ছিলাম কারন পিএমএ একটা মেয়েকে অনেক মারধর করছিলো ওখানে। ও আমাদেরই তো একজন ছিলো। এটাই আমার সহ্য হয় নাই। এটা এক খারাপ জায়গা!

19059592_1900072993607369_4240776082140280336_n

[Part 2/2]
“আমার কাজ ছেড়ে চলে যাওয়ার পরিকল্পনা ছিল। চাকরিটা ছাড়ছিলাম কারন পিএমএ একটা মেয়েকে অনেক মারধর করছিলো ওখানে। ও আমাদেরই তো একজন ছিলো। এটাই আমার সহ্য হয় নাই। এটা এক খারাপ জায়গা!
এখন যেই জায়গায় কাজ করি সেই জায়গায় মোটামোটি একটু ভালো অবস্থায় আছি। ১০-১৪ তারিখের মধ্যে বেতন দেয়। মাঝে মধ্যে পিকনিকে নিয়ে যায়। যেমন এইবার আমরা ২৬-এ মার্চে পিকনিকে গেছিলাম। শবে বরাতের মতো সময় আসলে লাঞ্চের পরই ছুটি দেয়। আর শুক্রবার লাঞ্চের পর ছুটি। এখানে বিনোদনেরও ব্যবস্থা আছে। কাজের জন্য আমাদের গান বাজায় শুনায়। আগের তুলনায় এই জায়গায় কাজ করে তেমন খারাপ লাগে না আর।”
– একটি পোশাক কারখানার প্রাক্তন কর্মচারী
 

 
“I was planning on leaving my job for a while. This one time, the PMA beat up a girl at work. That was the tipping point when I decided that I’m leaving. She was one of us, right!! This is something I could not forgive or get over. That was one bad place to work at!
Currently, I am happy where I am working. They disburse salary within first 2 weeks of the month. Sometimes they take us to picnics as well. Like, this Independence Day, we went for a picnic together. We are allowed leave after lunch on special occasions like Shab-e-barat. On Fridays, we can get off after lunch as well. They have kept entertainment facility for us too, to motivate us while we are at work. I am quite happy here.”
– Ex-employee at a garment factory

This story is featured in Made In Equality, an initiative supported by C&A Foundation.