আমি আমার খুশি মত গান গাই। গান গাওয়ার মধ্যে একরকম শান্তি আছে । আমি অনুষ্ঠানে গাই না, শুধু নিজের জন্য গাই। হিপ হপ , র‍্যাপ এগুলা আমার পছন্দ। আমি সমাজের সমস্যাগুলো নিয়ে র‍্যাপ গাই। আমি এখনও নিজে গান লিখিনি, কিন্তু একদিন লিখব।”

25152049_1985913218356679_6363080392220166162_n

“আমি ২০০৭ পর্যন্ত গার্মেন্টসে কাজ করি। এটা সরকার গার্মেন্টস কর্মীদের বেতন বাড়ানোর আগের কথা। তখন বেতন খুবই কম ছিল, মাত্র ১২০০ টাকা মাসে। আমার সাথে আমার মা থাকতেন। এখন উনি বিদেশে থাকেন আর আমি এখানে একা থাকি। আমরা তিন ভাই তিন বোন। আমার ভাইবোনরা আমার বাবার সাথে গ্রামের বাড়িতে থাকে। আমার ভাইদের সাথে অনেকদিন কথা বলা হয় না।
 
আমি আমার খুশি মত গান গাই। গান গাওয়ার মধ্যে একরকম শান্তি আছে । আমি অনুষ্ঠানে গাই না, শুধু নিজের জন্য গাই। হিপ হপ , র‍্যাপ এগুলা আমার পছন্দ। আমি সমাজের সমস্যাগুলো নিয়ে র‍্যাপ গাই। আমি এখনও নিজে গান লিখিনি, কিন্তু একদিন লিখব।”

– গার্মেন্টস কারখানার একজন সাবেক কর্মী
 

 
“I worked at a garment factory till 2007. It was before the time when the government had increased the pay for garment worker. Thus, back then, the pay was very little. Only 1200 taka.
My mother used to live with me here before. Now she lives abroad and I’m here in Dhaka living on my own. It can get lonely sometimes. I have three brothers and two sisters. However, they live with my father back in the village. I haven’t talked to my brothers in a long time. 
 
I like to sing when I get time. It gives me a sense of satisfaction. I don’t sing at parties; just for myself. I like hip hop and rap music. I compose my own lyrics too! I rap about the problems of the society. I can only say my lyrics but I’m unable to write them down on my own, but someday, I will.”
– A former employee at a garment factory

This story is featured in Made In Equality, an initiative supported by C&A Foundation.