আমার বাবা আগে গাড়ির মিস্ত্রি ছিল কিন্তু এখন মা-বাবা দুইজনই বার্ধক্যের কারনে কাজ করতে পারে না। তাই আমি এবং আমার ভাই আমাদের পরিবারের ভারবহন করি।

19023398_1898840583730610_1873854168309167355_o

আমার জন্ম ঢাকাতেই। মা-বাবা, তিন ভাই আর এক বোনকে নিয়ে আমার পরিবার। এক ভাই চট্টগ্রামে থাকে আর এক ভাই ব্যাংকের পিয়ন। আমার বাবা আগে গাড়ির মিস্ত্রি ছিল কিন্তু এখন মা-বাবা দুইজনই বার্ধক্যের কারনে কাজ করতে পারে না। তাই আমি এবং আমার ভাই আমাদের পরিবারের ভারবহন করি।

আমি গার্মেন্টসে মোট নয় মাস চাকরি করেছি। প্রথম দুই মাস আমি হেল্পার ছিলাম এবং পরের সাত মাস অপেরাটর। গার্মেন্টসের কাজের দায়িত্বের সাথে সমস্যার বোঝা বেরে গিয়েছিল। আমাকে প্রায়ই অনেক রাত পর্যন্ত কাজ করতে হত আর বেতন পেতাম অনেক দেরি করে। গার্মেন্টসের চাকরি ছেড়ে আমি এখন পারলারে কাজ করছি। আমার রোজগারে তেমন কন উন্নতি না আসলেও আমি এখন বেশ তৃপ্ত। এখন আমার লক্ষ্য আমার ছোট বোনের পড়াশুনা অবিরত রাখা। – একটি ছোট পোশাক কারখানা সাবেক কর্মচারী


I was born in Dhaka. My family includes my parents along with three brothers and my only sister. One of my brother lives in Chittagong and another brother works as a clerk at a bank. My father was a car mechanic. However, now both my parents are unable to work due to their age. I, along with my brother now look after the family.

I worked at a garment factory for nine months. First two months I used to help around. Soon, I started working as an operator. I worked 7 months as an operator. I used to work till late at night. On top of that, I was always late to receive my salary. Thus, I quit that job. Currently, I’m working in a beauty parlor. Although my salary here is not as much as my last job, but I am happy. I only have one goal now: to help my younger sister to continue her education.

– Ex-employee at a garment factory

This story is featured in Made In Equality, an initiative supported by C&A Foundation.