আমার একদম প্রথম স্টেজ পার্ফরমেন্স/ পরিবেশনা ছিল উত্তরায়। সেদিন সন্ধ্যায় নাচ খুব সুন্দর হয়েছিল, কোন ভুল হয়নি। কিন্তু মজার ব্যপার হচ্ছে, নাচের পুরো সময়টায় আমি এতই চিন্তায় ছিলাম যে, হাসতে ভুলে গিয়েছি।

25316980_10215156330845059_1500514201_o

“আমার কর্মজীবনের প্রায় পনের বছর হয়ে যাচ্ছে। গত চার বছর ধরে আমি তেজগাঁর একটা গার্মেন্টস ফ্যাক্টরিতে কাজ করছি। যাই হোক, আজকে আমার গল্পের সাথে কাজের কোন সম্পর্ক নেই।

আমি নাচতে ভালোবাসি। সেই ছোটবেলা থেকে আমার নাচের শুরু। এবং অবশ্যই অন্য সবার মতই, আমার শুরুটাও বাসায় নেচেই। টেলিভিশন বা রেডিওতে কোন নতুন সুন্দর সুর আসলেই হত! আমি নাচের জন্য দাঁড়িয়ে যেতাম। সবসময় আমার শখ ছিল ঠিকঠাক ভাবে নাচ শিখব। অবশেষে, পাঁচ বছর আগে আমি নাচের ক্লাসে ভর্তি হয়েছি। আসলে, একদম নাই করার চেয়ে দেরী করে করাও ভাল!

আমার একদম প্রথম স্টেজ পার্ফরমেন্স/ পরিবেশনা ছিল উত্তরায়। সেদিন সন্ধ্যায় নাচ খুব সুন্দর হয়েছিল, কোন ভুল হয়নি। কিন্তু মজার ব্যপার হচ্ছে, নাচের পুরো সময়টায় আমি এতই চিন্তায় ছিলাম যে, হাসতে ভুলে গিয়েছি। নাচ শেষ হওয়া মাত্র, কয়েক সেকেন্ড সবাই নিশ্চুপ। তারপরই হঠাৎ আমার নাচের সহকর্মীরা/ বন্ধুরা আমার উপর বৃষ্টির মত টাকা ছিটাতে লাগল, আমি খুশিতে ফেটে পড়লাম। দর্শকরাও সেদিন এই আনন্দে যোগ দিয়েছিল। এটা আমার জীবনের সবচেয়ে মনে রাখার মত ঘটনাগুলোর একটি। অসম্ভব প্রিয় একটা মুহূর্ত!”

– একটি তৈরি পোশাক কারখানার শ্রমিক


“I have been working for almost 15 years now. For the last 4 years I am working in a garment factory in Tejgaon. However, my story today doesn’t revolve around my work life.

I love dancing. I started dancing since I was a little girl. Of course, like most others, I also started off at home. Every time a nice tune would come on the television or radio, and that’s it! I would be on my feet, dancing. I have been meaning to learn professionally since my childhood. I finally started taking dance classes 5 years ago. Oh well! Better late than never.

My very first stage performance was in Uttara. The performance was flawless, that evening. No mistakes. But here’s the funny part – I was so incredibly nervous that I forgot to smile throughout the performance! Right at the end of my performance, there was a brief silence. Suddenly, one of my co-dancers started showering money on me and I burst out in laughter! The crowd cheered too, and this became one of the most memorable incidents of my life. A moment to cherish!”

– Employee at a garment factory

 

This story is featured in Made In Equality, an initiative supported by C&A Foundation.