ঠিক করলাম দুবাই যাবো। প্রায় দুই লক্ষ টাকা খরচ করে দুবাই গেলাম তিন বছরের জন্য। পিলো কভার, বেড কভার এই সব বানাতাম সেখানে। খুব একটা উন্নতি না হওয়ায় আবার ঢাকায় ফিরে আসি।

26220806_1996617787286222_2762942289123859829_o

“ঢাকায় যখন আসি তখন সিনেমা দেখার যে কি শখ ছিল! আলমগীর শাবানার সিনেমা মানেই দেখতে হবে। কতো সুন্দর সিনেমা হত তখন! এখনের সিনেমা তো ভালো লাগেনা। শেষ সিনেমা দেখেছি জজ ব্যারিস্টার, সেই ২৫ বছর আগে। অনেক দায়িত্বের মাঝে এই একটাই শখ ছিল আমার। কাজের মাঝে অন্য কিছুর জন্য সময়ই হয় নাই।

এস এস সি শেষ করার আগেই কাজ শুরু করতে হয়েছিলো। বাড়ির আর্থিক অবস্থা ভালো ছিল না, ভাই বোন গুলও ছোট ছিল। তাই দায়িত্বের ভারটাও বেশি ছিল। প্রথমে ঢাকায় এসে টেইলরিং এর কাজ করি। ১৪ বছর ধরে এই কাজ করার পর আবার বাড়িতে কিছুদিন দোকান করি। তাতেও কিছু হচ্ছিল না। ঠিক করলাম দুবাই যাবো। প্রায় দুই লক্ষ টাকা খরচ করে দুবাই গেলাম তিন বছরের জন্য। পিলো কভার, বেড কভার এই সব বানাতাম সেখানে। খুব একটা উন্নতি না হওয়ায় আবার ঢাকায় ফিরে আসি।

এখন আছি কোনরকম। ঈদ ছাড়া এই ব্যবসায় তেমন একটা কাজও থাকেনা। আগের দোকানে ঈদের পর কোন কাজ না থাকায় বেতন পাওয়াও মুশকিল হয়ে যায়। কাজ খুঁজতে খুঁজতে এই দোকানে আসি। একাই থাকি। ঈদ ছাড়া তেমন একটা বাড়িতেও যাই না। দিনগুলো কাজের মধ্যেই কেটে যায়। ছুটির দিনগুলোও দেখতে দেখতে চলে যায়। এর থেকে একটু বেশি টাকা আয়ের ইচ্ছা আছে, এ ছাড়া তেমন কোন ইচ্ছাও নাই। পড়াশোনা করা থাকলে অন্য কিছু হয়তো করতাম তাও তো সম্ভব না। কখন যে কাজের ফাঁকে শখ, সময়, ইচ্ছা সব শেষ হয়ে গেল টেরই পাইনি।”

– ঢাকায় একটি দরজী দোকানে কর্মরত একজন কর্মচারীর গল্প


“When I first came to Dhaka, I loved watching movies! It was one of my most favorite hobbies. It used to be a must watch whenever the movie starred Shabana and Alamgir. The movies used to be beautiful during that time but now, I have lost the interest. It’s been 25 years since I’ve watched a movie properly. Amidst all the work and responsibility, my amusement faded over time.

My family was not financially very stable; my siblings were also too young. Thus, I had to get to work even before I could finish my H.S.C. I learned tailoring work when I moved to Dhaka. After working in this field for 14 years, I tried my luck with running a shop back in the village. Nothing was working for me; it was really frustrating! Then I decided to move to Dubai. I spent about 2 lakh taka to go to Dubai; stayed there for 3 years. I used to make pillow and bed covers there. Even that was not working out. Eventually, I moved back to Dhaka and here I am now.

Life is passing by somehow. This business does not have much work except during the Eid. Hence it becomes difficult to get the salary on time during the rest of the year. There is not much hope left in me; I just want to earn a bit more. Perhaps I could have been in a better place had I been educated. I barely realized when and how all my hopes and desires faded away over the years.”

– Story of an employee working at a tailor shop in Dhaka

This story is featured in Made In Equality, an initiative supported by C&A Foundation.