এইচ. এস. সি. পরীক্ষায় আমার রেজাল্ট ছিল ৪.৫। ব্র্যাক স্কুলে শিক্ষাকতাও করেছি। সবসময় চাইতাম পড়াশোনাটা চালিয়ে যেতে। কিন্তু আর্থিক সমস্যায় পড়ে ইচ্ছার সেখানেই ইতি। আমার স্বামী ভাল একটা চাকরি করত। হঠাৎ করেই সেটা চলে যায়। বাসায় সাহায্য করার জন্য কাজ খুঁজতে শুরু করি।

26168963_1994512070830127_8502802146831474377_n

[Part 1/2]
“আমি কাজ করছি ১ বছর, ২ মাস, দশদিন। একদম প্রথম দিন থেকে সবকিছু আমার খুব ভালোভাবে মনে আছে।
 
এইচ. এস. সি. পরীক্ষায় আমার রেজাল্ট ছিল ৪.৫। ব্র্যাক স্কুলে শিক্ষাকতাও করেছি। সবসময় চাইতাম পড়াশোনাটা চালিয়ে যেতে। কিন্তু আর্থিক সমস্যায় পড়ে ইচ্ছার সেখানেই ইতি। আমার স্বামী ভাল একটা চাকরি করত। হঠাৎ করেই সেটা চলে যায়। বাসায় সাহায্য করার জন্য কাজ খুঁজতে শুরু করি। কাজ খুঁজে পেলাম গার্মেন্টসে। কোন অভিজ্ঞতা না থাকায়, কাটিং ডিপার্টমেন্টে হেল্পার হিসেবে অ্যাপ্লাই করি। কিন্তু আমার সার্টিফিকেট দেখার পর কর্তৃপক্ষ আমাকে এত ছোট চাকরি দিতে চায়নি। ঊনারা চাচ্ছিলেন আমি আরো ভালো পদে কাজ করি। তাই তারা নিজে থেকেই আমাকে মান নিয়ন্ত্রণ বিভাগে কাজ করার সুযোগ করে দেন।
 

কাজ করার জন্য এর থেকে ভালো জায়গা হয় না। শুরু থেকেই এখানে সবার অসম্ভব সহযোগিতা পেয়েছি। একবার আমার প্রচন্ড দাঁতে ব্যথা ছিল। কাজ করতে পারছিলাম না। আমাকে তাৎক্ষণিক ছুটির ব্যবস্থা করে দিল অফিস থেকে। এ ছাড়াও আমার পরিশ্রমের একটা কদর আছে এখানে।”

– একজন গার্মেন্টস কর্মী

 

 
“I have been working for exactly one year, two months and ten days. I still remember everything very clearly from the very first day.
 
I got a 4.5 GPA in my HSC exams. I also worked as a teacher at BRAC school. I have always wanted to continue my education. However, our financial conditions were not in favor. My husband also had a good job. He lost that job all of a sudden. I had to start looking for jobs to support my family. I finally found a job in a garment factory. Since I didn’t have any professional training, I applied in the cutting department as a helper. However, upon seeing my certifications, my employers decided to offer me a higher position to match my educational qualifications. They offered me to work in the quality processing.
 

I could not have asked for a better place to work at. The people here are extremely supportive. This one time, I had a severe toothache. I was not being able to work. My employer arranged a leave for me immediately. Besides this, I also feel appreciated for my hard work.”

– An employee at a garment factory

In the picture: Daughter of employee who is sharing her story

This story is featured in Made In Equality, an initiative supported by C&A Foundation.